দেশজুড়ে



দেশদর্পণ ডেস্ক

১২ মার্চ ২০১৮, ২:১৯ পূর্বাহ্ণ




৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণের পর সেপটিক ট্যাংকে ফেলে হত্যার চেষ্টা

দেশদর্পণ ডেস্ক :: চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলায় ধর্ষণের পর ৯ বছরের শিশুকে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ জনতা আপন চন্দ্র মালী (৪৫) নামে অভিযুক্ত এক ব্যক্তিকে মারধর করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। রবিবার (১১ মার্চ) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ওই উপজেলার কাটিরহাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। বর্তমানে শিশুটি চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। হাটহাজারী থানার ওসি বেলাল উদ্দিন মো. জাহাঙ্গীর এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

আটক আপন চন্দ্র মালী কাটিরহাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের দফতরি হিসেবে কাজ করেন।

ওসি বেলাল উদ্দিন মো. জাহাঙ্গীর জানান, ‘নির্যাতনের শিকার ওই শিশুকে ধর্ষণের পর ছুরিকাঘাত করে স্কুলের সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দেয় স্কুলের দফতরি। পরে তাকে স্থানীয়রা মারধর করে পুলিশে সোপর্দ করে।’

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি বলেন, ‘সেপটিক ট্যাংকে গোঙানির শব্দ শুনে স্থানীয়রা শিশুটিকে উদ্ধার করে। তার গলায় এবং শরীরের বিভিন্ন অংশে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন আছে। শিশুটিকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।’

স্থানী ইউপি সদস্য সুলতানা রিজিয়া বলেন, ‘মেয়েটি কাটিরহাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। শিশুটি স্কুল শেষে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া তার ভাইয়ের কাছে যায়। এসময় স্কুলের দফতরি চন্দ্র মালী তাকে ভাইয়ের কাছে নিয়ে যাবে বলে দোতলায় নিয়ে যায়। সেখানে শিশুটিকে শারীরিক নির্যাতন করে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দেয় চন্দ্র মালী। দীর্ঘক্ষণ শিশুটিকে না দেখে পরিবারের সদস্যরা খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন। একপর্যায়ে সেপটিক ট্যাংকে গোঙানির শব্দ শুনে তাকে ট্যাংক থেকে উদ্ধার করা হয়।’

চমেক পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার বলেন, ‘মেয়েটিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার গলায় ও শরীরের বিভিন্ন অংশে গুরুতর জখমের চিহ্ন রয়েছে। তাকে ধর্ষণের পর ছুরিকাঘাত করা হয়।’

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর