সিলেট প্রতিক্ষণ



দেশদর্পণ ডেস্ক

২১ মার্চ ২০১৮, ৪:০০ অপরাহ্ণ




সুনামগঞ্জে শিশুর আঙ্গুল কাটার ৫ দিন: ধরা-ছোঁয়ার বাইরে প্রধান অভিযুক্ত

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: নির্মাণাধীন হাওর রক্ষা বাঁধে গড়াগড়ি দেয়ায় সাত বছরের শিশু ইয়াহিনকে মাটিতে আছড়ে ফেলে কাস্তে (ধান কাটার কাঁচি) দিয়ে হাতের তিনটি আঙুল কেটে ফেলার চেষ্টা করেন আবদুল ওদুদ নামে এক যুবলীগ নেতা। এঘটনার পাঁচদিন অতিক্রান্ত হলেও এখনও প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারিনি পুলিশ।

তবে এ মামলায় দ্বিতীয় আসামি আলম মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শিশু ইয়াহিনকে নির্যাতনের ঘটনার পরপরই তার বাবা শাহনূর মিয়া বাদী হয়ে দুই জনকে আসামি করে তাহিরপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। এরপর থেকেই পলাতক রয়েছেন প্রধান অভিযুক্ত অদুদ মিয়া ।

এদিকে নির্যাতনের শিকার ইয়াহিন সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘শিশু ইয়াহিনের ডান হাতের তিনটি আঙ্গুল আগের মতই কাজ করবে, তবে কিছুটা সময় লাগবে। শারীরিক অবস্থা এখন উন্নতির দিকে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আন্তরিকভাবে শিশুটির চিকিৎসা করছে। ’

তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নন্দন কান্তি ধ র বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত প্রধান আসামি অদুদ মিয়া পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতার করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। দ্রুতই প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করা হবে।’

উল্লেখ্য, গত শনিবার বিকালে সহপাঠীদের নিয়ে উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের সুলেমানপুর গ্রামের মহালিয়ার হাওরের ময়নাখালী ফসলরক্ষা বাঁধে খেলাধুলা করছিল কয়েকটি শিশু। বাঁধে গড়াগড়ি খেলে তা দেখে ফেলেন আবদুল অদুদ। তাকে ধাওয়া করে ধরে মারধোর করেন এবং কয়েকটি আছাড়ও মারেন। ইয়াহিন তার পা ধরে ক্ষমা চাইলেও মন গলেনি। এরপর কাঁচি দিয়ে শিশুটির ডান হাতের তিনটি আঙ্গুল কেটে ফেলার চেষ্টা করে অদুদ মিয়া।

স্থানীয়রা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে রাতে তাকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ইয়াহিনকে হাসপাতালে দেখতে যান জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থার লোকজন। পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান শিশুটির চিকিৎসার জন্য তাৎক্ষণিকভাবে নগদ ২০ হাজার টাকা দেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতনও শিশুটির চিকিৎসার জন্য নগদ অর্থ সহায়তা দেন। জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম শিশুটির পরিবারকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর