রাজনীতি, লিড নিউজ, সিলেট প্রতিক্ষণ



দেশদর্পণ ডেস্ক

১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ৭:৩৬ অপরাহ্ণ




সিলেট থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করলেন এরশাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক :: আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার পর এবার সিলেট থেকে আগামী নির্বাচনের প্রচারণা শুরু করলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। এসময় তিনি বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার নয়, সংবিধানের আলোকেই আগামী নির্বাচন চায় তার দল।

আজ বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সিলেটে হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারত শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে একথা বলেন তিনি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন দলের কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব রুহুম আমীন হাওলাদার, সংসদের বিরোধী দলীয় হুইপ মো. সেলিম উদ্দিন, প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মন্ত্রী কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা, মেজর (অব.) খালেদ আখতার, বিশ্বনাথ-২ আসনের সংসদ সদস্য ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী এহিয়া প্রমুখ।

এরশাদ বলেন, ‘আমি সিলেটে এসেছি সিলেটবাসীর অনেক ভালোবাসা নিতে ও বাবা শাহজালালের দোয়া নিতে। আশা করি বাবা শাহজালাল আমার দোয়া কবুল করবেন। আগামী নির্বাচনে আমরা ভালো ফলাফল করব।’ আগামী নির্বাচনে সব আসনের জন্য প্রার্থী দিতে প্রস্তুত জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এখন প্রস্তুতি নিচ্ছি। তিনশ আসনে প্রার্থী রয়েছে আমাদের। তবে আগামীদিনের রাজনীতির অবস্থা দেখে আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব। বুঝতেই পারছ আমি কি বলতে চাইছি।’

আওয়ামীলীগের সাথে জাতীয় পার্টির জোট নেই উল্লেখ করে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন,‘‘আওয়ামীলীগের সাথে আমাদের কোন জোট নেই ভবিষ্যতে কি হবে সেটা বলা যাচ্ছেনা। জাতীয়পার্টি সব সময় নির্বাচনে বিশ্বাস করে,গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। নির্বাচন ছাড়া কোন কিছুই করা যায়না।’’

সংবিধানের আলোকে নির্বাচন চান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সংবিধানের মাধ্যমেই নির্বাচন হবে। আমরা তত্ত্বাবধায়ক সরকারে বিশ্বাস করি না। কোন তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমাদের প্রতি সুবিচার করেননি। সংবিধানের মাধ্যমে নির্বাচন করতে চাই। সংবিধানে যে লেখা আছে সেইভাবে নির্বাচন করতে চাই। এর বাইরে নির্বাচন করতে চাই না।’ এসময় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, ‘আমি ১৯৯০ সালে তিন জোটের রূপরেখা মেনে পদত্যাগ করেছিলাম। আশা করেছিলাম আমরা নির্বাচন করতে পারব। কিন্তু তখনকার সরকার বিশেষ করে বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আমাদের প্রতি অবিচার করে আমাদের নির্বাচন করতে দেন নাই। আমাদের সব নেতৃবৃন্দকে জেলে পাঠিয়েছিলেন, আমার স্ত্রীসহ সবাই জেলে ছিল। আমরা বন্দি অবস্থায় জেলখানা থেকে নির্বাচন করেছিলাম। আমরা নির্বাচনে বিশ্বাস করি। নির্বাচন ছাড়া সরকার পরিবর্তন করা যায় না। নির্বাচন ছাড়া অন্যায়ের প্রতিবাদ করা যায় না। আমরা নির্বাচন করেছিলাম। সবসময় নির্বাচন করেছি।’

তিনি সিলেটবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, ‘আমি জেলখানায় ছিলাম ছয় বছর। সেখানে থেকে দুইবার নির্বাচন করেছি। আমি সিলেটবাসীর কাছে অনেক অনেক কৃতজ্ঞ, আপনারা দলকে ৮টি আসন দিয়ে আমাকে ফাঁসির হাত থেকে রক্ষা করেছিলেন। সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হতে দেননি। সিলেটবাসীর কাছে চিরকাল, চিরজীবন কৃতজ্ঞ থাকবো।’

পরে তিতি হযরত শাহপরান (রহ.) মাজার জিয়ারত করেন।

 

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর