আইন-আদালত



দেশদর্পণ ডেস্ক

৭ মার্চ ২০১৮, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ




সিলেটে হত্যা মামলায় দুই জনের যাবজ্জীবন

দেশদর্পন ডেস্ক :: সিলেটের ওসমানীনগরে হাজী আবদাল হোসেন হত্যা মামলায় দুই জনকে যাবজ্জীবন এবং চার জনকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি সাজাপ্রাপ্ত প্রত্যেক আসামিকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া, এ মামলা থেকে দুই জনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (৬ মার্চ) সিলেটের অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত-১ ও শিশু আদালতের বিচারক এএম জুলফিকার হায়াত এ রায় দেন।

যাবজ্জীবন পাওয়া আসামিরা হলেন– সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর থানার উত্তর দাওরাই গ্রামের মৃত আলতাফ মিয়ার ছেলে মো. নজরুল ইসলাম (৩৫), ওসমানীনগর থানার হলিমপুর গ্রামের আব্দুর গফুরের ছেলে সাহেল আহমদ উরফে সায়েল (২১)।

১০ বছরের কারাদণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন– ওসমানীনগর থানার ভাগলপুর গ্রামের আব্দুল আকির ছেলে ফিরোজ আলী (৪০), তার ভাই আনা মিয়া (৩৫) ও রোশন মিয়া (৩০) এবং একই থানার ভেরারাই গ্রামের মো. সাজিদ উল্লার ছেলে জয়নাল আবেদীন (৩০)।

খালাসপ্রাপ্তরা হলেন– হবিগঞ্জের বানিয়াচং থানার সাগরদিঘীরপূর্বপাড় গ্রামের মো. সওদাগরের ছেলে রফিক (২১) ও ওসমানীনগর থানার মতিয়ারগাঁও গ্রামের আনুর মিয়ার শিশু ছেলে আক্তার উরফে মো. আক্তার হোসেন (১৩)।

আদালত সূত্র জানায়, রায় ঘোষণার সময় সাজাপ্রাপ্ত আসামি আনা মিয়া, খালাসপ্রাপ্ত রফিক ও আক্তার আদালতে উপস্থিত ছিল।

আদালত সূত্র আরও জানায়, ২০০৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে ওসমানীনগর থানার ভেরারাই গ্রামের হাজী আবদাল হোসেন (৬৫) ও তার পরিবারের সদস্যদের মারধর করে পাঁচ ভরি স্বর্ণালংকারসহ ২ লাখ ৮৭ হাজার টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায় ডাকাতরা। এসময় তাদের চিৎকারে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় পুলিশ নজরুল ইসলাম, ফিরোজ আলী, সাহেল আহমদ, জয়নাল আবেদীন, রফিক ও শিশু আক্তারকে আটক করে। পরে গুরুতর আহত হাজী আবদাল হোসেনকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত আইনজীবী (এপিপি) মো. নিজাম উদ্দিন বলেন, ‘ওসমানীনগরের আবদাল হোসেন হত্যা মামলায় আদালত দুই জনকে যাবজ্জীবন এবং চার জনকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন। পাশাপাশি সাজাপ্রাপ্ত প্রত্যেক আসামিকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া, এ মামলা থেকে দুই জনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।’

আসামীপক্ষের আইনজীবী শাহ আলম মহি উদ্দিন জানান, আদালতে আমরা ন্যায় বিচার পেয়েছি।

বেআ/আবে

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর