দেশদর্পণ ডেস্ক
Ad Space
রোহিঙ্গাদের অস্তিত্বের শেষ চিহ্নও মুছে ফেলছে মিয়ানমার

রাখাইনের রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর নির্যাতন চালানোর পর সেখানে তাদের শেষ চিহ্নও মুছে ফেলেছে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে এমনটি উঠে এসেছে। এতে বলা হয়, জাতিসংঘ কমিশন স্যাটেলাইটের ছবি এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষ্যের ভিত্তিতে বলছে, সম্প্রতি নতুন করে উত্তর রাখাইনে বিস্তীর্ণ এলাকা পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। মানচিত্র থেকে মুছে ফেলা হচ্ছে রোহিঙ্গা গ্রামের নাম-চিহ্ন। খবর রয়টার্স’র।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে মিয়ানমার। মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট গত সোমবার এসব ঘটনার স্বাধীন তদন্ত দাবি করেছেন।

জানা যায়, বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের সীমান্ত নদী নাফ নদী থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে কান কিয়া গ্রামে সহস্রাধিক রোহিঙ্গা মুসলিম বাস করতেন। ২০১৭ সালে পুরো রাখাইন জুড়ে রোহিঙ্গা নিধনের ধ্বংসযজ্ঞ চালায় দেশটির সেনাবাহিনী। এ সময় ঐ গ্রামকে আগুনে পোড়ানো হয়। চালানো হয় বুলডোজারের তান্ডব। সে সময় প্রাণে বাঁচতে গ্রামের হাজার হাজার রোহিঙ্গা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে অন্য রোহিঙ্গাদের সঙ্গে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। গ্রামটিতে এখন দেশটির সামরিক ও সরকাররি ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। পুলিশের নজরদারির জন্য দেওয়া হয়েছে কাঁটা তারের বেড়া। এমনটি দেখা যায় ‘গুগল আর্থ’ ম্যাপে।
রয়টার্স এমন কিছু ছবি প্রকাশও করেছে। মিয়ানমারে জাতিসংঘের ‘ম্যাপিং ইউনিট’ ২০২০ সালে দেশটির নতুন ম্যাপ বানিয়েছে। মিয়ানমারের সরকারি মানচিত্রের ভিত্তিতে জাতিসংঘের ‘ম্যাপিং ইউনিট’ নিজেদের ম্যাপ তৈরি করে। জাতিসংঘের অধীনে নানা সংস্থা ওই ম্যাপ ব্যবহার করে। দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে ঐ জায়গাটিকে নিকটবর্তী মংডু শহরের অন্তর্ভূক্ত বলে বর্ণনা করা হয়েছে।

রাখাইন রাজ্যে কান কিয়া গ্রামের মত অন্তত চার শত গ্রামকে ধ্বংস করা হয়েছে। এমনটি বলছে নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ‘হিউম্যান রাইটস ওয়াচ’। সংস্থাটি ভূ-উপগ্রহের ছবি বিশ্লেষণ করে এ তথ্য জানিয়েছে।

জেনেভায় মানবাধিকার কমিশনের ৪৫তম অধিবেশনে ব্যাচেলেট বলেন, আগে যেখানে রোহিঙ্গা গ্রাম ছিল সেই অঞ্চলগুলো পুনর্গঠন করছে মিয়ানমারের সরকারি প্রশাসকেরা। সরকারি মানচিত্র থেকে সরিয়ে ফেলা হচ্ছে গ্রামের নাম আর ওই ভূমি বদলে দেওয়ারও চেষ্টা করছে মিয়ানমার। মিশেল ব্যাচেলেট বলেন, ‘এগুলো অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে এবং আগের অবস্থা ফিরিয়ে দেওয়া উচিত।’

তবে তা অস্বীকার করছে মিয়ানমার সরকার। মিশেল ব্যাচেলেট বলেন, বেসামরিক নাগরিকদের গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যা, ব্যাপক বাস্তুচ্যুতি, বিনা বিচারে আটক, নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু এবং বেসামরিক জনগণের সম্পত্তি নষ্টের দিকে নজর ফেরানোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, ‘এসব অভিযোগ স্বাধীন এবং মাঠ পর্যায়ে তদন্তের প্রয়োজনীয়তাকে সামনে এনেছে।’

প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে রোহিঙ্গারা রাখাইনে থাকলেও মিয়ানমার তাদের নাগরিক বলে স্বীকার করে না। উগ্র বৌদ্ধবাদকে ব্যবহার করে সেখানকার সেনাবাহিনী ইতিহাসের বাঁকে বাঁকে স্থাপন করেছে সাম্প্রদায়িক অবিশ্বাসের চিহ্ন। ছড়িয়েছে বিদ্বেষ। ৮২-তে প্রণীত নাগরিকত্ব আইনে পরিচয়হীনতার কাল শুরু হয় রোহিঙ্গাদের। এরপর কখনও মলিন হয়ে যাওয়া কোনও নিবন্ধনপত্র, কখনও নীলচে সবুজ রঙের রসিদ, কখনও ভোটার স্বীকৃতির হোয়াইট কার্ড, কখনও আবার ‘ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড’ কিংবা এনভিসি নামের রঙবেরঙের পরিচয়পত্র দেওয়া হয়েছে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মানুষকে। ধাপে ধাপে মলিন হয়েছে তাদের পরিচয়। ক্রমশ তাদের রূপান্তরিত করা হয়েছে রাষ্ট্রহীন বেনাগরিকে।

মিয়ানমারের সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় রাখাইন রাজ্যের পুনঃগঠনের কাজ দেখভাল করছে। রয়টার্স থেকে তাদের কাছে গ্রামের নাম মানচিত্র থেকে মুছে ফেলার কারণ এবং কবে নাগাদ রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে আনা হবে তা জানতে চাওয়া হলে তারা এসব বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মাঝামাঝিতে রাখাইন রাজ্যে সন্ত্রাস দমনের নামে রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর হত্যাযজ্ঞ চালায় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। এ সময় প্রাণ বাঁচাতে প্রায় ৮ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নেন। জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের সেনাদের বিরদ্ধে ‘গণহত্যার’ অভিযোগে শুনানি চলছে।