জাতীয়, লিড নিউজ



দেশদর্পণ ডেস্ক

২৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ৪:১৬ অপরাহ্ণ




রিভিউ শুনানিতে নতুন বিচারপতি নিয়োগের প্রয়োজন নেই: আইনমন্ত্রী

দেশদর্পণ ডেস্ক :: আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানিয়েছেন, সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ আবেদনের শুনানি আপিল বিভাগের পাঁচজন বিচারপতিই করতে পারবেন।

তিনি বলেন, সংবিধান ও নিয়ম অনুযায়ী রিভিউ আবেদন করা হয়েছে। এখন আপিল বিভাগে যে বেঞ্চ আছে, সেই পাঁচজন বিচারপতিই শুনানি করতে পারবেন। নতুন করে বিচারপতি নিয়োগের প্রয়োজন নেই।

আইনমন্ত্রী বলেন, বিচারকদের নিয়ন্ত্রণে সংবিধান রাষ্ট্রপতিকে যে ক্ষমতা দিয়েছে, শৃঙ্খলাবিধির নামে তা সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা কেড়ে নিতে চেয়েছিলেন। সংবিধানের ১১৬ অনুচ্ছেদ এবং মাজদার হোসেন মামলার পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী শৃঙ্খলাবিধি করা হয়েছে। এতে বিচার বিভাগের কোনো স্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ হয়নি।

মঙ্গলবার রাজধানীর বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে জেনারেল প্রসিকিউটর (জিপি) এবং পাবলিক প্রসিকিউটরদের (পিপি) ১৯তম প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এবং এর পর বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন। জেএটিআইয়ের পরিচালক বিচারপতি মুসা খালেদের

সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আইন সচিব আবু সালেহ শেখ মোহম্মদ জহিরুল হক, জেএটিআইয়ের পরিচালক (প্রশিক্ষণ) গোলাম কিবরিয়া প্রমুখ।

গত ৩ জুলাই সংবিধানের সংশোধনী বাতিল করে রায় দেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের সাতজন বিচারপতির বেঞ্চ। তাদের মধ্যে প্রধান বিচারপতি সিনহা পদত্যাগ করেছেন ও বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা অবসরে গেছেন। বর্তমানে বেঞ্চে পাঁচজন বিচারপতি রয়েছেন।

পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের চার মাসেরও বেশি সময় পর রোববার ওই রায়ের রিভিউ আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ।

কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী বলেন, অধস্তন আদালতের বিচারকদের শৃঙ্খলাবিধির মাধ্যমে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ করা হয়নি।

তিনি বলেন, মাজদার হোসেন মামলার পর একটি শৃঙ্খলাবিধির প্রয়োজন ছিল। বিচার বিভাগ স্বাধীন হওয়ার দিন থেকেই এর প্রয়োজন অনুভব হয়। কিন্তু কেউ এটা তৈরি করেনি। বর্তমান সরকারের আমলেই আইন মন্ত্রণালয় এটা করেছে।

আনিসুল হক বলেন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে কমিটমেন্ট, তা অন্য কোনো সরকারের ছিল না। তাই আওয়ামী লীগই বিচার বিভাগের স্বাধীনতা রক্ষা করতে পারে। বঙ্গবন্ধুসহ ১৮ জনকে হত্যার পর ২১ বছর পর্যন্ত যারা একটি এফআইআরও দায়ের করতে দেয়নি, তাদের মুখে বিচার বিভাগের স্বাধীনতার কথা শোভা পায় না।

প্র.প/আ-প্র.প

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর