আন্তর্জাতিক



দেশদর্পণ ডেস্ক

৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ৭:১৯ পূর্বাহ্ণ




যুবরাজের সঙ্গে কুশনারের বৈঠক, কিছুই জানে না পররাষ্ট্র দফতর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: ফিলিস্তিন ও ইসরায়েলে নতুন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা ও পরামর্শক জ্যারেড কুশনার সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের মধ্যে এক গোপন বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। ‘গোপন বৈঠকে’ নতুন রাষ্ট্র পরিচালনায় সৌদি আরবসহ কয়েকটি দেশের অর্থায়নের বিষয়েও আলোচনা করেন তারা। কয়েকেটি সূত্র উদ্ধৃত করে এমনটা দাবি করেছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ।

ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে বলা হয়, মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী রেক্স টিলারসন এই বৈঠক নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন। কারণ কুশনার এই বিষয়ে পররষ্ট্র দফতর ও উচ্চপদস্থ কূটনীতিকদের কিছুই জানায়নি। টিলারসনের আশঙ্কা, যদি এই বৈঠক ব্যর্থ হয় তাহলে মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিরতা বাড়বে।

শনিবার জেরুজালেম অনলাইনে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানইয়াহুর সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ইয়াকভ নাজেল বলেছিলেন, সৌদি আরব ইরানের সঙ্গে প্রভাব বিস্তারের ছায়াযুদ্ধে এতটাই মগ্ন যে তারা জেরুজালেমের সঙ্গে ফিলিস্তিনিদের দূরে ঠেলে দেওয়ার কূটনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতেও পিছপা হবে না।

নাজেল বলেন, রিয়াদ ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক অন্য মাত্রায় নিয়ে যেতে চায়। এতে করে ফিলিস্তিনিদের ওপর কি প্রভাব পড়বে না দিয়ে তারা উদ্বিগ্ন নয়। তিনি বলেন, ‘সৌদি আরব চায় যে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে চুক্তি হোক। চুক্তিতে কি থাকবে সেটা নিয়ে ভ্রুক্ষেপ নেই তাদের।

এদিকে মার্কিন দূতাবাস তেল আবিব থেকে সরিয়ে জেরুজালেমে নেওয়ার ট্রাম্পের পরিকল্পনায় ইতোমধ্যে অস্থির হয়ে উঠেছে মধ্যপ্রাচ্য। আরব লিগসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো উদ্বেগ প্রকাশ করতে শুরু করেছে।

ইহুদি-খ্রিস্টান ও মুসলিম; তিন সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ ধর্মীয় তীর্থস্থান জেরুজালেম। দূতাবাস সরিয়ে নিলে জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নিজের নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্প ঘোষণা দিয়েছিলেন যে তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে নেবেন। তবে এখনও সেই প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে পারেননি তিনি। এই পদক্ষেপ বাস্তবায়িত হলেই জেরুজালেম ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে মার্কিন স্বীকৃতি পাবে। ট্রাম্পের পদক্ষেপ রুখতেই আরব লিগ আর ওআইসিকে বৈঠকের আহ্বান জানিয়েছে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ। রয়টার্স শীর্ষ একজন মার্কিন কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে, ট্রাম্পের পদক্ষেপ ঠেকাতেই বৈঠক আয়োজনে তৎপর হয়েছে জর্ডান।

বেআ/আবে

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর