দেশদর্পণ ডেস্ক
Ad Space
মিয়ানমার থেকে এসেছে পেঁয়াজের প্রথম চালান 

ভারত রপ্তানি বন্ধের পর বিকল্প দেশ হিসেবে মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজের প্রথম চালান দেশে এসে পৌঁছেছে।

আজ শনিবার (১৯সেপ্টেম্বর) দুপুরে চালানটি টেকনাফ স্থলবন্দরে ট্রলার থেকে খালাস হচ্ছে। মিয়ানমারে লকডাউনের কারণে টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে প্রায় আড়াই মাস ধরে আমদানি–রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ থাকার মধ্যেই চালানটি এল।

মিয়ানমারে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার পর গত ৩ জুলাই থেকে দেশটির সঙ্গে স্থলবন্দরে পণ্য আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম প্রায় বন্ধ ছিল। এর মধ্যে পেঁয়াজের চালানটি এলেও নতুন করে আরও চালান আসবে কি–না তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

টেকনাফ স্থলবন্দরের মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন চৌধুরী জানান, দুটি ট্রলারে করে ৩০ টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। চালানটি খালাস করা হচ্ছে। এই চালানটির মাধ্যমে আড়াই মাস পর পেঁয়াজ আমদানি শুরু হলো।

পেঁয়াজের চালান খালাস করেছে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস সেভেন স্টার। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার আরাফাতুর রহিম জানান, টেকনাফের ব্যবসায়ী মো. ওসমান গনি এই চালানটি আমদানি করেছেন। মিয়ানমারে লকডাউন থাকায় এখনো স্বাভাবিক সময়ের মতো পণ্য আমদানি করা যাচ্ছে না। পেঁয়াজের চালানটি বিক্রির জন্য আজই খাতুনগঞ্জে পাঠানো হবে বলে তিনি জানান।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করে। এরপরই বিভিন্ন দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির ঋণপত্র খুলেছেন ব্যবসায়ীরা। এখনো পর্যন্ত মিয়ানমার ছাড়া অন্য কোনো দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি হয়নি।