আইন-আদালত



দেশদর্পণ ডেস্ক

১৩ মার্চ ২০১৮, ১:৪১ অপরাহ্ণ




মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িতরা দায় এড়াতে পারে না: ট্রাইব্যুনাল

দেশদর্পণ ডেস্ক :: আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেছেন, মানবতাবিরোধী ঘৃণ্য অপরাধের সঙ্গে জেনে- বুঝে যারা জড়িত হয়েছে, তারা এর দায় এড়াতে পারে না।

মঙ্গলবার (১৩ মার্চ) নোয়াখালীর সুধারাম থানার চার মানবতাবিরোধীর রায় ঘোষণাকালে ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এ পর্যবেক্ষণ দেন।

এ সময় ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন চিফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপু, প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম, জাহিদ ইমাম, মোখলেসুর রহমান বাদল, সাবিনা ইয়াসমিন মুন্নি প্রমুখ।

ট্রাইব্যুনালে রায় ঘোষণার পর প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল বলেন, ‘ট্রাইব্যুনালে তিন আসামির মৃত্যুদণ্ড ও একজনকে ২০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। রায় ঘোষণাকালে ট্রাইব্যুনাল বলেছেন, এ মামলার আসামিরা অংশগ্রহণমূলকভাবে অপরাধ সংঘটনের উদ্দেশ্যে সম্পৃক্ত ছিল। তারা জেনে-বুঝে মানবতাবিরোধী অপরাধের মতো ঘৃণিত অপরাধ সংগঠনের উদ্দেশ্যে সম্পৃক্ত হয়েছিল। সেক্ষেত্রে তারা অপরাধ সংঘটিত করেছিল, নাকি করেনি—তা বড় কথা নয়। তারা সচেতনভাবে অপরাধ সংগঠনের জন্য সমবেত হয়েছিল, তা জেসিই (জয়েন্ট ক্রিমিনাল এন্টারপ্রাইজ) এর আওতাভূক্ত। তাই তারা এর দায় এড়াতে পারে না ।’

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় নোয়াখালীর আমির আহম্মেদ ওরফে রাজাকার আমির আলীসহ তিন আসামির মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত অন্য দুজন হলো— আবুল কালাম ওরফে একেএম মনসুর ও জয়নাল আবদিন। এছাড়া মামলার অন্য আসামি আব্দুল কুদ্দুসকে ২০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর