সিলেট প্রতিক্ষণ



দেশদর্পণ ডেস্ক

১৮ মার্চ ২০১৮, ১:৫৪ পূর্বাহ্ণ




বাঁধে গড়াগড়ি দেয়ায় শিশুর আঙুল কেটে দিয়েছেন যুবলীগ নেতা!

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: নির্মাণাধীন হাওর রক্ষা বাঁধে গড়াগড়ি দেয়ায় সাত বছরের এক শিশুকে মাটিতে আছড়ে ফেলে কাস্তে (ধান কাটার কাঁচি) দিয়ে হাতের তিনটি আঙুল কেটে দিয়েছেন আবদুল ওদুদ নামে এক যুবলীগ নেতা। শিশুটির নাম ইয়াহিন মিয়া। সে তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের সুলেমানপুর গ্রামের শাহানুর মিয়ার ছেলে।

শনিবার বিকালে শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের মহালিয়া হাওরের ময়নাখালী বেড়িবাঁধে এ ঘটনা ঘটে।

আবদুল অদুদ সুলেমানপুর গ্রামের জমির উদ্দিনের ছেলে। তিনি ২৮ নম্বর প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) সভাপতি ও ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক।

স্থানীয়রা জানান, বিকালে সহপাঠীদের নিয়ে বাঁধের ওপর খেলছিল বাঁধে গড়াগড়ি খেলে তা দেখে ফেলেন আবদুল অদুদ। তাকে ধাওয়া করে ধরে মারধোর করেন এবং কয়েকটি আছাড়ও মারেন। ইয়াহিন তার পা ধরে ক্ষমা চাইলেও মন গলেনি। এরপর কাঁচি দিয়ে শিশুটির ডান হাতের তিনটি আঙল কেটে ফেলেন।

স্থানীয়রা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে রাতে তাকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

শাহনুর জানান, ‘বেড়িবাঁধে গড়াগড়ি দেয়ার অপরাধে আমার শিশু সন্তানের তিনটি আঙুল কেটে দিল ওদুদ। এখন কী করে আমার ছেলে লেখাপড়া করবে? আমি গরিব মানুষ, ওর চিকিৎসা করাব কীভাবে?’ ওদুদ মিয়ার বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আবদুল ওদুদ প্রথমে অস্বীকার করেন। পরে বলেন, ‘ভাই আমার মাথা ঠিক ছিল না। রাগের মাথায় ঘটনাটা ঘটিয়ে ফেলেছি।’

তাহিরপুর থানার ওসি নন্দন কান্তি ধর জানান, ‘খবর পেয়ে রাতে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি।’

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর