খেলাধুলা



দেশদর্পণ ডেস্ক

৩ ডিসেম্বর ২০১৭, ১:০৮ অপরাহ্ণ




খাদের কিনারে দাঁড়িয়ে সিলেট সিক্সার্সের দাপুটে জয়

দেশদর্পণ ক্রীড়া :: একেই কী বলে দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেলে মরিয়া চেষ্টা? চিটাগাং ভাইকিংসের বিপক্ষে সিলেটের আগ্রাসী বোলিং সেকথাই বলছে যেন। টানা তিন জয় দিয়ে দাপুটে শুরুর পর হারতে হারতে জয়ের রাস্তাটাই যেন ভুলে গিয়েছিল সিলেট সিক্সার্স। যখন সেরা চারে জায়গাটা প্রায় নেই হয়ে গেছে তখন এমন দাপুটে ফেরা। চট্টগ্রামকে রীতিমতো ১০ উইকেটে হারিয়ে শেষ চারের স্বপ্নটা বাঁচিয়ে রাখলো তারা। ৩১ রানে পাঁচ উইকেট নিয়ে সিলেটের হিরো নাসির হোসেন। তবে পরের খেলায় রংপুর কী করে সেদিকেও চেয়ে থাকতে হবে নাসিরদের।

টস জিতে সিলেটের অধিনায়ক নাসির হোসেন ব্যাটিংয়ে পাঠান চট্টগ্রামকে। কে জনাতো বল হাতে কী রুদ্রমূর্তি ধারণ করতে যাচ্ছেন তিনি। ৩১ রান দিয়ে একাই ৫ উইকেট নিয়ে বিধ্বস্ত করে দেন চট্টলার ব্যাটিং লাইন। উইকেটে দূরূহ হলেও ৬৮ রানের টার্গেট এ আর এমন কি। শরীরী ভাষাতেই ম্যাচ ছেড়ে দেওয়া ভাইকিংস বোলারদের বলে ছিল না কামড়, ছিল না বিন্দুমাত্র চেষ্টা। সিক্সার্সের দুই ওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ান ও আন্দ্রে ফ্লেচার বলের মেরিট বুঝেই বের করেছেন রান। বাজে বলে মেরেছেন বাউন্ডারি। উইকেট আগলে ম্যাচ শেষ করে এসেছেন স্বস্তিতে। রিজওয়ান অপরাজিত ছিলেন ৩৬ রানে, ফ্লেচারের রান ৩২।

মন্থর উইকেট, অসমান বাউন্সে আগের দিনই কাঠগড়ায় ছিল মিরপুরের উইকেট। উইকেটের এমন চরিত্রের কথা বেমালুম ভুলে গিয়েছিলেন চিটগাং ভাইকিংস ব্যাটসম্যানরা। শুরু থেকে পেটাতে গিয়ে তালগোল পাকিয়েছেন। টপাটপ উইকেট পড়তে থাকল। উইকেটের সঙ্গে পাল্লা দিয়েই যেন চলল বাজে ব্যাটিং। আট ওভার আগে মাত্র ৬৭ রানে গুটিয়ে গেল তারা।

প্রথম ওভারেই নাই দুই ওপেনার। নাসির হোসেনের প্রথম বলেই ছক্কা মেরে দিয়েছিলেন লুক রঙ্কি। পরের বলেই লাইনে না গিয়ে পেটাতে গিয়ে বোল্ড রঙ্কি। স্ট্রাইক পেয়ে উইকেটের ভাষা পড়তে পারার মতো মতগতি ছিল না সৌম্যর। ক্যাচ উঠল নাসিরেরই হাতে। মাঝে পেসার সোহেল তানভীরের ওভারে কেবল উইকেট পড়েনি। পরের ওভারে নাসির লুইস রিসকে আউট করে পেলেন তিন নম্বর উইকেট। বল করতে এসেই বলে শরিফুল্লাহ কাটলেন সিকান্দার রাজাকে। নাসির পরের দুই ওভারে তানভীর হায়দার আর স্টিয়েন ফন সিলকে আউট করে পেয়ে যান ক্যারিয়ারের প্রথম ৫ উইকেট। .

ভাইকিংস ইনিংসের বাকিটা মুড়েছেন নাবিল সামাদ। এই বাঁহাতি স্পিনার ৭ রান দিয়েই পেয়েছেন ৩ উইকেট। ভাইকিংসের মাত্র তিন ব্যাটসম্যান পেরুতে পেরেছেন দুই অঙ্কের ঘর।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
চিটাগাং ভাইকিংস : ৬৭/১০ (রঙ্কি ৬, সৌম্য ০, রিস ১২, ফন সিল ১১, সিকান্দার ১, তানবীর ৫, ইরফান ১৫, এমরিট ২, সানজামুল ৯*, নাঈম ৩, তাসকিন ১ ; নাসির ৫/৩১, সোহেল ০/৬, শরিফুল্লাহ ২/২৩, নাবিল ৩/৭)

সিলেট সিক্সার্স: ৬৮/০ (রিজওয়ান ৩৬*, ফ্লেচার ৩২* ; সানজামুল ০/১০, নাঈম ০/১২, রিস ০/১৪, তানবীর ০/১৫)

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর