দেশদর্পণ ডেস্ক

১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ৩:৫৫ পূর্বাহ্ণ




কয়েদির পোশাকে খালেদা জিয়া

দেশদর্পণ ডেস্ক :: দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া কারাবিধি অনুযায়ী ডিভিশন না পেলেও সরকারি নির্দেশে তাঁকে ডিভিশনের সব সুবিধা দেওয়া হচ্ছে বলে কারা সূত্রে জানা গেছে। আর পুরান ঢাকার পরিত্যক্ত কেন্দ্রীয় কারাগারের যে প্রশাসনিক ভবনে তাঁকে আপাতত রাখা হয়েছে, সেটিকে সাবজেল বা বিশেষ কারাগার হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে কারাগারে প্রথম দিন স্বাভাবিকভাবেই কাটিয়েছেন খালেদা জিয়া। গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে গতকাল শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, খালেদা জিয়াকে কয়েদির পোশাক পরানো হয়েছে। তিনি কারাগারের দেওয়া খাবারই খেয়েছেন। বিশ্রামের পাশাপাশি তিনি নামাজ পড়েছেন। এর মধ্যে গতকাল বিকেলে প্রথমবারের মতো খালেদা জিয়ার সঙ্গে তাঁর ভাই-বোনসহ পরিবারের সদস্যরা দেখা করে। তারা তাঁর জন্য কাপড়চোপড় নিয়ে যায়।

এ ছাড়া বিএনপির নেতাকর্মীরাও কিছুক্ষণ পর পর কারাগারের সামনে ভিড় করে। কেউ কেউ খাবারও নিয়ে আসে। তবে পুলিশের ব্যারিকেডের কাছেই তাদের আটকে দেওয়া হয়। খাবারও ভেতরে পাঠানোর অনুমোদন মেলেনি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কারা কর্মকর্তা জানান, খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত হওয়ায় কয়েদির মর্যাদায় রয়েছেন কারাগারে। এ কারণে কারাবিধি অনুযায়ী তাঁকে মহিলা কয়েদির পোশাক পরতে হবে।

খালেদা জিয়া এরই মধ্যে কয়েদির পোশাক পরেছেন কি না, জানতে চাইলে ওই কারা কর্মকর্তা পরোক্ষভাবে বলেন, ‘কয়েদির পোশাক পরা ছাড়া অন্য পোশাক পরার সুযোগ নেই।’

খালেদা জিয়াকে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখায় পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে গতকালও জনসাধারণের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। কারা ফটকের দেড়-দুই শ গজ দূরে ব্যারিকেড দিয়ে যান চলাচল বন্ধ রাখা হয়। পুলিশ ও র‌্যাবের বিপুলসংখ্যক সদস্যকে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর