সিলেট প্রতিক্ষণ



দেশদর্পণ ডেস্ক

৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ৭:৩৫ অপরাহ্ণ




কোর্ট পয়েন্ট এলাকায় প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক :: আলোচিত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদ-ের রায় ঘোষণার পরপরই আজ বৃহস্পতিবার সিলেটে ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের গুলি বিনিময়ে অন্তত দুইজন গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এসময় একাধিক যুবককে প্রকাশ্যে অস্ত্র উচিয়ে প্রতিপক্ষের অবস্থান লক্ষ্য করে গুলি করতে দেখা গেছে। পুলিশ এখনো তাদের কাউকে আটক করতে পারেনি।

তবে একটি সূত্র জানিয়েছে, সিলেটের আদালত ফটকের কাছ থেকে আদালতপাড়া লক্ষ্য করে গুলি চালানো যুবক ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। তার নাম মুনিম আহমদ। তিনি একটি একনলা বন্দুক দিয়ে গুলি ছুড়েন। এসময় আদালত এলাকায় বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা অবস্থান করছিলেন।

এ ঘটনার কিছুক্ষণ পরই কোর্ট পয়েন্ট এলাকায় প্রকাশ্যে পিস্তল হাতে আরেকজনকে দেখা গেছে। আকাশী রঙের শার্ট ও কোর্ট পরিহিত যুবক মহানগর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সজল দাস অনিক বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এদিকে ঘন্টাব্যাপি সংঘর্ষে দুইজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধ হন জেলা ছাত্রদলের দুই নেতা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, রায়কে কেন্দ্র করে সকাল থেকে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ সিলেট জেলা পরিষদে অবস্থান নেয়। অন্যদিকে আদালতপাড়ায় অবস্থান নেন বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। রায় ঘোষণার পরপর বেলা আড়াইটার দিকে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা এবং আইনজীবীরা একত্রিত হয়ে মিছিল বের করতে চাইলে পুলিশ বাঁধা দেয়। এসময় তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে। এসময় জেলা পরিষদ এলাকায় থাকা ছাত্রলীগ বেরিয়ে এসে প্রথমে তাদের লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে এবং পরে ধাওয়া দেয়। এসময় গুলিবিনিময়ও হয় পাল্টাপাল্টি। দু’জন গুলিবিদ্ধ হন। এরমধ্যে একজনের পরিচয় মিলেছে। তিনি জেলা ছাত্রদলের কর্মী মোস্তফা কামরুল। তার মাথায় গুলি লেগেছে। তিনি একটি বেসরকারী ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। অন্যরা সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

 

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর