জাতীয়



দেশদর্পণ ডেস্ক

২৩ মার্চ ২০১৮, ৪:৫৯ অপরাহ্ণ




‘কবিরের অবস্থাও ভালো নয়, লাগতে পারে লাইফ সাপোর্ট’

দেশদর্পণ ডেস্ক :: আইসিইউতে থাকা স্বামীকে নিয়ে অস্থির সময় কাটছে স্ত্রী হেনার। কখন কী হয়—এই দুশ্চিন্তায় অস্থির কবির হোসেনের স্ত্রী হেনা কবির। তিনি বলেন, ‘ওর অবস্থা ভালো নয়, খুব খারাপ। ডাক্তাররা বলেন যে ও ভালো হয়ে যাবে, কিন্তু ও যখন আসে তখন ঠিক ছিল। এখন অবস্থা খারাপের দিকে যাচ্ছে। ওকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে।’

নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় আহত কবির হোসন সম্পর্কে শুক্রবার (২৩ মার্চ) এ কথা বলেন তিনি।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে চিকিৎসাধীন কবির হোসেন সম্পর্কে প্রায় একই কথা বলেন ডা. সামন্ত লাল সেন। তিনি শুক্রবার দুপুরে বলেন, ‘আমি কিছুক্ষণ আগে গিয়ে তাকে দেখে এসেছি। কবির হোসেনের অবস্থা ভালো নয়। তাকে লাইফ সাপোর্ট দেওয়া লাগতে পারে।’

১২ মার্চ নেপালে ইউএস-বাংলার বিমান দুর্ঘটনায় আহত হন কবির হোসেনকে গত রোববার (১৮ মার্চ) দেশে এনে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

হেনা কবির বলেন, ‘আমাদের তিন সন্তান; ওরা এখনও ছোট। বড়টির বয়স ২১ বয়স, আল হেলাল ইবনে কবির। ছোট দুটির একজনের বয়স ১৩, অন্যজনের ১৫। এখন ওরা বাবার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া চাইছে। নেপাল থেকে যখন আসে তখন অনেক সুস্থ ছিল। এখন ধীরে ধীরে ওর অবস্থা খারাপ হয়ে যাচ্ছে।’

কবির হোসেনের ভাই মো. রুবেল বলেন, ‘ভাইয়ের অবস্থা আগে যা ছিল, এখন তার চেয়ে বেশি খারাপ হয়ে যাচ্ছে। চিকিৎসকেরা আমাদের বলেছে, তারা ভাইয়ের ব্যাপারে মিটিং করে সিদ্ধান্ত নেবে। প্রয়োজনে ভাইকে সিঙ্গাপুরেও নিয়ে যাওয়া হতে পারে। আমরা বলেছি, বিশ্বের যে কোনও দেশে পাঠালে সমস্যা নাই, আমরা তার সুস্থতার প্রত্যাশা করছি।’

তিনি বলেন, ‘ভাইয়ের চিকিৎসা আগের মতোই চলছে, কিন্তু ভাইয়ের কন্ডিশন আগের চেয়ে খারাপ হয়েছে। এখানে উন্নত চিকিৎসা যদি না হয় চিকিৎসকেরা পরামর্শ করে ঠিক করবে কোথায় গেলে ভালো চিকিৎসা পাওয়া যাবে। যেহেতু খোদ প্রধানমন্ত্রী ভাইয়ের চিকিৎসার ব্যাপারে খোঁজ রাখছেন, তারাই ঠিক করবে, রোগীর আসলে কী করলে ভালো হয়।’

কবির হোসেনের বড় ভাই আফসার মাতবর মাদারীপুরের শিবচর থেকে ছোট ভাইকে একনজর দেখার জন্য ঢাকা এসেছেন, সঙ্গে এসেছে ছেলে ও নাতি। তিনি বলেন, ‘ওর (কবির) অবস্থা ততটা ভালো নয়। অবস্থা এখন বেশি খারাপ হয়েছে। নেপালে যখন ভাই ছিল তখন ফোনে কথা হয়েছে। এখন ঢাকায় আসার পর ভাইয়ের সঙ্গে কথাও বলতে পারছি না।’

তিনি বলেন, ‘যদি ভাইয়ের চিকিৎসা এখানকার চেয়ে দেশের বাইরে ভালো হয় প্রয়োজনে বাইরে নিয়ে যাওয়ার চিন্তাভাবনা আছে।

গত ১২ মার্চ নেপালে ইউএস-বাংলার বিমান দুর্ঘটনায় আহত হন কবির হোসেনসহ ১০ বাংলাদেশি। তাদের মধ্যে তিনিসহ সাত জনের চিকিৎসা চলছে ঢামেক হাসপাতালে। এই সাত জনের জন্য ১৪ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। এই বোর্ডের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড সার্জারি ইউনিটের প্রধান ডা. সামন্ত লাল সেন।

সূত্র: বংলা ট্রিবিউন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর