দেশদর্পণ ডেস্ক

৭ মার্চ ২০১৮, ৯:৫৯ অপরাহ্ণ




‘এমন যুদ্ধ এমন সংগ্রাম আর কে করে মা ছাড়া’

কারু তিতাস :: আজকাল মায়ের সঙ্গে ছবি তুললেই মা বলে, ‘এটাই বোধহয় আমার শেষ ছবি!’ কেন বলে!!! আমার কেমন যেন ঘোর লেগে যায়! মা আমার বোকা, ছোটবেলার মতো ভয় দেখায়। মা আমার কি সত্যিই বোকা? মায়েরা জগত সংসারের বহু দূর দেখতে পায়। আমি কেন পাই না?!!!

আর একটু পরেই সন্ধ্যা নামবে। আর একটি দিন প্রবেশ করবে রাতে। গভীর অন্ধকার থেকে প্রতিদিন আলোকিত সকাল দেখায় আমাদের সকলের মা। সবার মতো জগতের মায়েরাও কেন এ জগত ছেড়ে চলে যায় একদিন? সৃষ্টিকর্তা বিধাতা নাকি কোনও মানুষের কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ পৃথিবী থেকে তুলে নেন না। একদিন সকলের কাজ শেষ হয়ে যেতে পারে। কিন্তু জগতে মায়েদের কাজ কি কখনও শেষ হয়?

এত যন্ত্রণা, এত কষ্ট, এত দুঃখ, এত বেদনা জগতে মা ছাড়া আর কে ধারণ করবে? কে সহ্য করবে? কে বহন করবে? এমন যুদ্ধ, এমন সংগ্রাম আর কে করে মা ছাড়া? কারও মা না থাকলে তার বাগানে সকালে কি ফুল ফোটে? কোনও পাখি আসে? মা ছাড়া কে আলোকিত করবে এ জগতকে? পৃথিবীতে মাই তো মানুষের একমাত্র বাতিঘর।

এ জগত ছেড়ে যেতে আজ আমার কোনও দুঃখ বা কোনও মায়া নেই। আমার তেমন কিছু জগতকে দেওয়ারও নেই, নেওয়ারও নেই। কিন্তু মায়েদের তো আজও অনেক কাজ বাকি রয়ে গেছে। জগত তাদের পানে চেয়ে থাকে যে! তাদের যে অনেক কিছু দেওয়ার থাকে আজীবন। এই জগত মা ছাড়া আর কার কাছে কী চাইবে? জীবনের সব দাবিই তো ওই মায়ের কাছে। জগতের সব সুখ যে মায়ের পায়ে। মা তো হিমালয়— আছেও, থাকবেও।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর