আন্তর্জাতিক



দেশদর্পণ ডেস্ক

৩১ মার্চ ২০১৮, ৮:২২ অপরাহ্ণ




এই মুহূর্তে ইমামকে গণসংবর্ধনা দেওয়া হোক: কবীর সুমন

দেশদর্পণ ডেস্ক :: আসানসোলের নুরানি মসজিদের ইমাম মৌলানা ইমদাদুল রশিদিকে ভারতরত্ন খেতাবে ভূষিত করার দাবি তুলেছেন পশ্চিমবঙ্গের নন্দিত গায়ক কবীর সুমন। দুই বাংলায় সমান জনপ্রিয় এই কণ্ঠশিল্পী ও সুরকার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও একই দাবিতে সামিল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এই মুহূর্তেই ইমাম রশিদির গণসংবর্ধনার আয়োজন করারও দাবি তুলেছেন, ‘তোমাকে চাই’ অ্যালবামের মধ্য দিয়ে বাংলা গানের জগতে বাকবদলের নেতৃত্বদানকারী এই শিল্পী।

রাম নবমীর মিছিলকে কেন্দ্র করে সোমবার থেকেই উত্তপ্ত ছিল আসানসোল। মঙ্গলবার বিকেলে রেলপাড় নামের এলাকা থেকে নিখোঁজ হয় মৌলানার ১৬ বছর বয়সী সন্তান শিবতুল্লা রশিদি। বুধবার তার মরদেহ উদ্ধার হয়। পুত্রের শেষকৃত্যের সময় বৃহস্পতিবার রাতে তিনি আসানসোলবাসীর কাছে শান্তির আহ্বান জানান।

কবীর সুমন তার ব্যক্তিগত ফেসবুক একাউন্টে দেওয়া এক পোস্টে লিখেছেন, ‘সাচ্চা মানুষ নুরানি মসজিদের ইমাম, যাঁর ছেলেকে ঐভাবে খুন করল হিন্দুত্বের অভিভাবকরা। এই ইমাম সাহেবকে ভারতরত্ন দেওয়া হবে না? সব রাজনৈতিক দলের, বিশেষ করে এ রাজ্যের তৃণমূল, সি পি আই এম, বিজেপি, নকশালপন্থী বিপ্লবীরা কী বলেন?’

মানুষের কাছে ইমাম আবেদন করেছেন, ‘কোনও প্রতিহিংসা নয়। প্রতিশোধ নিতে যদি কারোর মৃত্যু ঘটাও, তাহলে আমি এই শহর ছেড়ে চলে যাব। আমি তোমাদের সঙ্গে ৩০বছর ধরে আছি, আমাকে যদি তোমরা ভালোবাসো তাহলে আর কাউকে যেন এভাবে মরতে না হয়।’

২০০৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে মমতার তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে কবীর সুমন কলকাতার যাদবপুরের সাংসদ হয়েছিলেন। নির্বাচনের এক বছরের মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দূরত্ব তৈরী হয় তার। এক পর্যায়ে দল ছাড়েন। সেই মমতার উদ্দেশে সুমন তার ফেসবুক পোস্টে বলেছেন, ‘আমাদের মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী, আসানসোলের নুরানি মসজিদের ইমামের জন্য ভারতরত্ন দাবি করো, পাড়ায় পাড়ায় প্রতিরোধের ডাক দাও। ’

ইমাম রশিদির জন্য গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রস্তাব দিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘এই মুহূর্তে নুরানি মসজিদের ইমামকে গণস্মমান দেওয়া হোক। আমরা সকলে তাঁকে প্রণাম করব।’

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর