সিলেট প্রতিক্ষণ



দেশদর্পণ ডেস্ক

২৯ নভেম্বর ২০১৭, ৪:৩৯ অপরাহ্ণ




অবৈধপন্থায় পাথর উত্তোলন বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সিলেটের বিভিন্ন পাথর কোয়ারীতে অবৈধপন্থায় পাথর উত্তোলন বন্ধে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, প্রকৃতি ও পরিবেশের ক্ষতি রোধে প্রশাসনের পাশাপাশি সমাজের সকলকে নিজেদের অবস্থান থেকে সম্মিলিতভাবে ভূমিকা রাখাতে হবে।

আজ বুধবার (২৯ নভেম্বর) সকালে সিলেটের একটি অভিজাত হোটেলে ‘অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন : প্রয়োজন আইনের কঠোর প্রয়োগ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) এই সভার আয়োজন করে।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের জেলা সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী সভাপতিত্বে ও সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকরামুল কবীর ও পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট-এর উপপরিচালক আলতাফ হোসেন।

অনুষ্ঠানে শুরুতে ‘অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন : প্রয়োজন আইনের কঠোর প্রয়োগ’ শীর্ষক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বেলা সিলেট এর বিভাগীয় সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট শাহ সাহেদা আখতার।

মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, জাতীয় মহিলা আইনজীবি সমিতি সিলেট বিভাগীয় প্রধান অ্যাডভোকেট সৈয়দা শিরিন আক্তার, সাংবাদিক আল-আজাদ, নিউজ টুয়েন্টিফোরের সিলেট প্রতিনিধি শাহ দিদারুল আলম নবেল, জাফলং আমির আলী উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মো. সরোয়ার হোসেন, অ্যাডভোকেট কামাল হোসেন, দেলোওয়ার হোসেন, তাহমিনা রোজি, কয়েস আহমদ সাগর প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ‘আমরা কারো প্রতিপক্ষ নই। কিন্তু অবৈধপন্থায় পাথর উত্তোলন বন্ধ না হলে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং পরিবেশ বিপর্যয় বন্ধ করা সম্ভব নয়।’ জাফলং, ভোলাগঞ্জসহ পাথর কোয়ারীগুলোর পরিবেশ বিপন্নের প্রমাণ তুলে ধরতে গিয়ে তারা বলেন, ‘মানুষ মিথ্যা বলতে পারে কিন্তু প্রকৃতি ও ছবি মিথ্যা বলতে পারে না।’

প্রকৃতির উপরে যে নির্যাতন হচ্ছে তা একদিন প্রকৃতিই ফিরিয়ে দেবে বলে হুশিয়ারী উচ্চারণ করে আলোচনায় সভায় বক্তারা আরো বলেন, ‘যারা অবৈধপন্থায় বোমা মেশিনের মাধ্যমে যারা পাথর উত্তোলন করছে তাদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।’ প্রাকৃতিক সম্পদক ও দেশ রক্ষার দায়িত্ব সকলের মন্তব্য করে তারা বলেন, ‘পুলিশ ও প্রশাসনের মাধ্যমে জনসচেতনা বৃদ্ধি করতে হবে। পাশাপাশি মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে তাৎক্ষনিকভাবে জরিমান করলে অসাধু ব্যবসায়ীরা সাহস পাবে না অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করার।’ এসময় তারা প্রত্যেকটি পাথর কোয়ারীতে পুলিশ ক্যাম্প স্থাপনেরও আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে সুজন সিলেট জেলা কমিটির সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘প্রশাসনের পাশাপাশি আমাদের সবাইকে সোচ্চার হতে হবে, প্রতিবাদী হতে হবে। সৎভাবে একত্রে সকলে কাজ করতে হবে। সাধারণ মানুষের দুঃখ কষ্টের কথা আমাদেরকেই তুলে ধরতে হবে।’ অবৈধপন্থায় পাথর উত্তোলন বন্ধে এলাকার মানুষসহ শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন পেশার মানুষদের এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান তিনি।

 

 

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর